কালীগঞ্জে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ইউপি চেয়ারম্যানসহ আহত ২২

এস,এম সহিদুল ইসলাম লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জেরে এক সংঘর্ষের ঘটনায় ভেলাগুড়ি ইউপি চেয়ারম্যানসহ ২২ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে উভয় পক্ষের গুরতর আহত অবস্থায় আটজনকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
বুধবার ১০ অক্টোবর বিকেলে ঘটনাটি ঘটেছে  উপজেলার লতাবর(কদমতলি) এলাকায়।
এ ঘটনায় দেশি অস্ত্রসহ কামাল নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
হাসপাতাল সূত্র জানায়, সংঘর্ষে গুরতর আহত হওয়ায় তৎক্ষানিক  কালীগঞ্জ মেডিকেল থেকে লতাবর কদমতলি এলাকার আব্দুল কাইয়ুম, মিঠুন ও
তার ছোট ভাই মিলন এবং হাতীবান্ধা মেডিকেল থেকে জাওরানী  এলাকার সুরুজ, আশরাফুল,
রেজওয়ান, আজিজুল ও রুনুকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে ।
এদিকে হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে
চিকিৎসাধীন আছেন হাতীবান্ধার ভেলাগুড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনসহ ১০জন এবং কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আছেন লতাবর কদমতলি এলাকার রেজাউল করিম, আব্দুল বাতেন ও আক্কাস আলী।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, বাড়ি যাতায়াতের  রাস্তাকে  কেন্দ্র করে এক  সংঘর্ষের ঘটনায় ২০১৩ সালের ২১ মে লতাবর এলাকার জাহাঙ্গির শফিকুল রহমান নামে এক ব্যক্তি মারা যায়। সে হাতীবান্ধার ভেলাগুড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনের বেয়াই। ওই ঘটনার পর থেকে উভয় পক্ষের মধ্যে বিরোধের জের ধরে গত প্রায় পাঁচ বছরে উভয় পক্ষের মধ্যে হত্যাসহ পাঁচটি মামলা চলে
আসছে। এরই জের  ধরে  বুধবার ১০ অক্টোবর বিকেলে লোকজনসহ ওই চেয়ারম্যান তার
জামাইয়ের বাড়ির এলাকায় যাওয়ার  পর এক সংঘর্ষ বেধে যায়। এসময় উভয় পক্ষ
লাঠিসোটা ও দেশিয় অস্ত্র দিয়ে একে অপরের উপর হামলা চালালে ২২জন আহত হন।
কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মকবুল হোসেন জানান,এখন পর্যন্ত কোন পক্ষ অভিযোগ করেনি,অভিযোগ পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।