জামিন নামঞ্জুর, মইনুল কারাগারে

মানহানি মামলায় গ্রেফতার জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা ব্যারিস্টার ম্হইনুল হোসেনের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত। আজ মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম (এসিএমএম) কায়সারুল ইসলাম শুনানি শেষে তার জামিন নামঞ্জুর করেন।

রংপুরের মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে মঙ্গলবার দুপুর ১২ টা ৫৫ মিনিটে তাকে আদালতে হাজির করা হয়।

এর আগে গতকাল সোমবার রাত সোয়া ৯ টার দিকে রাজধানীর উত্তরা থেকে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা ও ইংরেজি দৈনিক নিউ নেশনের সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে গ্রেফতার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ।

রায়ের পর রাষ্ট্রপক্ষে কৌসলী বলেন, ব্যারিস্টার মইনুলের জামিন নামঞ্জুর করেছেন আদালত। নতুন করে জামিন নিতে হলে তাকে রংপুর আদালতে যেতে হবে।

প্রসঙ্গত, গত ১৬ অক্টোবর একাত্তর টেলিভিশনের টক শো ‘একাত্তর জার্নাল’-এ ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে প্রকাশ্যে সরাসরি অনুষ্ঠানে চরিত্রহীন বলায় দেশজুড়ে সমালোচনার সৃষ্টি হয়। এ মন্তব্যের জন্য পরে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন ব্যক্তিগতভাবে মাসুদা ভাট্টির কাছে ফোন করেন এবং লিখিতভাবে ক্ষমা চেয়েছেন। কিন্তু মাসুদা ভাট্টি তাকে ক্ষমা করেননি। তাই ওই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে গত রোববার দুপুরে ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আসাদুজ্জামান নূরের আদালতে মানহানির মামলা করেন মাসুদা ভাট্টি। আদালত ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে। পাশাপাশি মইনুলের একই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে রোববার সকালে তার বিরুদ্ধে জামালপুরের আদালতে ২০ হাজার কোটি টাকার মানহানির মামলা করেন যুব মহিলা লীগের জামালপুর শাখার আহ্বায়ক ফারজানা ইয়াসমীন লিটা। আদালত সে মামলা আমলে নিয়েও ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন। ওই দুই মামলায় ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে রোববার বিকেলে পাঁচ মাসের জন্য আগাম জামিন দেন আদালত।

এ ছাড়া ব্যারিস্টার মইনুলের বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা, ভোলা, কুড়িগ্রাম ও রংপুরে মামলা হয়েছে। এর মধ্যে একাধিক মামলায় পরোয়ানা জারি করেন আদালত। এরই মধ্যে গতকাল সোমবার রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

টিআর/