মজুরি ৮ হাজার টাকা প্রচার করে করা হলো ৫৯৭৫ টাকা’

‘১৮ হাজার টাকা নিম্নতম মজুরির ন্যায্য দাবিকে উপেক্ষা করে শুধুমাত্র ৭নং গ্রেডের মজুরি ৮ হাজার টাকা ঘোষণা করা হলেও অন্য গ্রেডের শ্রমিকদের মজুরি একই হারে বৃদ্ধি করা হয়নি এবং মালিক ও সরকার একজন নতুন শ্রমিকের মজুরি ৮ হাজার প্রচার করলেও তা ৫৯৭৫ টাকা নির্ধারণ করেছে।’

শুক্রবার (১২ অ‌ক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তারা এ তথ্য জানান।

বক্তারা বলেন, ‘সরকার ও মালিক পক্ষ নিম্নতম মজুরি ৮ হাজার টাকা প্রচার করলেও গেজেটে ৬ মাস শিক্ষানবিস সময় এবং শিক্ষানবিস শ্রমিকের মজুরি ৫৯৭৫ টাকা নির্ধারণ করেছে। ফলে গার্মেন্টস শ্রমিকের নিম্নতম মজুরি প্রকৃতপক্ষে ৮ হাজার নয় ৫৯৭৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

‘অন্যদিকে শিক্ষানবিস সময় শেষ হওয়ার পূর্বেই ছাটাই অন্য কারখানায় পুনরায় শিক্ষানবিস হিসাবে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। এভাবেই একজন শ্রমিকের মাসের পর মাস ৭নং গ্রেডের মজুরি থেকে বঞ্চিত করার সুযোগ রাখা হয়েছে। অপরদিকে শ্রমিকের মর্যাদা নামিয়ে কর্মীদের মজুরি বেশি নির্ধারণ করা হয়েছে।’

মানববন্ধনে গার্মেন্টস শ্রমিকের জন্য ঘোষিত মজুরি পুনঃবিবেচনা এবং শিক্ষানবিস অজুহাতে কমমজুরি দেয়ার সুযোগ বাতিলের আহবান জানানো হয়। পাশাপাশি অবিলম্বে সকল শ্রমিক নেতাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার না করা হলে কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি দেয়া হয়।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি আহসান হাবিব বুলবুলের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন আব্দুর রাজ্জাক, রাজেকুজ্জামান রতন, খালেকুজ্জামান লিপন, সেলিম মাহমুদ, জাহাঙ্গীর আলম গোলক, সৌমিত্র কুমার দাস সাইফুল ইসলাম শরিফ, হাসানাত করিব প্রমুখ।