নিষিদ্ধও হয়ে যেতে পারে সিলেট স্টেডিয়াম

আবারো প্রশ্নের মুখে পড়েছে সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়ামের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। খেলা চলাকালীন একই ম্যাচে দু’বার দর্শক মাঠে ঢুকে নিরাপত্তার দুর্বলতা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। এরপরই বিসিবি’র নিরাপত্তা বাহিনী কিংবা পুলিশের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। বার বার এমন ঘটনা ঘটলে এ মাঠে আসতে পারে খেলার ওপর আইসিসি’র নিষেধাজ্ঞাও।

তবে এমন অপ্রীতিকর অবস্থা এড়াতে ভবিষ্যতে সসতর্ক থাকার আশ্বাস বিসিবির।

বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে টেস্ট দিয়েই সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম প্রবেশ করে টেস্টের অভিজাত আঙ্গিনায়। সেদিনই ম্যাচ চলাকালীন ক্লাব হাউস থেকে এক শিশু দর্শক মাঠে ঢুকে পড়ে। প্রিয় ক্রিকেটার মুশফিককে কাছ থেকে দেখতেই নিরাপত্তা ফাকি দিয়ে মাঠে প্রবেশ করে সে। ঘটনাটা এখানেই শেষ হতে পারতো। কিন্তু ম্যাচের তৃতীয় দিনও একই গ্যালারী থেকে আরেক দর্শক সীমানা টপকে মাঠে ঢুকে পড়ে। পুলিশ এবং বিসিবির নিজস্ব নিরাপত্তারক্ষীরা থাকার পরও এক ম্যাচে দু’বার দর্শকদের মাঠে অনুপ্রবেশ প্রশ্ন তোলে মাঠের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে।

ক্রিকেটারদের প্রতি ভালোবাসা থেকেই এই দর্শকরা হয়তো মাঠরে ভেতরে ঢুকেছে। কিন্তু মাঠে উপস্থিত নিরাপত্তা রক্ষীদের তাহলে কাজ কি। যেখানে বিসিবি’রও আলাদা নিরাপত্তা কমিটি আছে। এমন উদাসীনতায় ক্ষতিগ্রস্ত হবে দেশের ক্রিকেট ও এর ইমেজ। শঙ্কা দেখা দিতে পারে ভেন্যু বাতিলেরও।

ক্রীড়া সাংবাদিক রিয়াসাদ আজিম বলেন, ‘সিলেটে আসলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার সঙ্গে যারা জড়িত ছিলেন তাদের আসলে আরো বেশি তৎপর হওয়া দরকার ছিল। শুরুতেই যদি এরকমটা হয় সেটা কিন্তু খুবই দুঃখজনক। সেক্ষেত্রে আইসিসি বা এসিসি অথবা ক্রিকেটের সংস্থাগুলোর এটাকে ইতিবাচকভাবে নেয়ার কোন কারণ নেই। কারণ, সবার আগে হচ্ছে ক্রিকেটারের নিরাপত্তা।’

এই দু’টি ঘটনা ভাবিয়ে তুলেছে বিসিবিকেও। তবে, এখান থেকে শিক্ষা নিয়ে ভবিষ্যতে ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না হয় সেই প্রতিশ্রুতি দিলেন স্থানীয় ক্রীড়া সংগঠক ও বিসিবি পরিচালক শফিউল আলম নাদেল।

তিনি বলেন, ‘আমাদের দুর্বলতাগুলো নিয়ে আমরা পর্যালোচনা করেছি। আমরা আশাবাদী যাতে ভবিষ্যতে এ ধরণের কোন ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে।’

ওয়েস্টে ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজেও ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে সিলেটে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এখনই সতর্ক না হলে আসন্ন সিরিজেও বিসিবি মুখোমুখি হতে পারে অপ্রীতিকর ঘটনার।

গত বিপিএলেও সীমানা প্রাচীর ভেদ করে শতশত দর্শক স্টেডিয়ামে ঢুকে পড়ে। এরপর জোরদার করা হয় বাইরের নিরাপত্তা। এবার আর মাঠের বাইরে নয়, খেলা চলাকালীন সোজা মাঠেই ঘটে দর্শক প্রবেশের ঘটনা।