শাবনূর চাইলেই শেষ হবে…

বাংলাদেশের সিনেমা জগতের এক অনবদ্য নাম শাবনূর। শুধুমাত্র শাবনূরের অভিনয় দেখার জন্যই এক সময়ে দর্শক হলমুখী হয়েছেন। তার বিপরীতে কোন নায়ক আছেন না আছেন তার হিসেবে নিকেশ করেননি দর্শক।

বিশেষ করে শাবনূর অভিনীত সিনেমা দেখার জন্য মহিলারা দলে দলে হলে যেতেন। কিন্তু সেই সময় বদলেছে। শাবনূরও আর সিনেমাতে অভিনয় করছেন না , তার ভক্তরাও হলমুখী হচ্ছেন না। তার ভক্তরা শুধু খোঁজ খবর রাখছেন কবে তার নতুন কোন সিনেমা মুক্তি পাবে। শাবনূর অভিনীত নতুন কোন সিনেমা আর আপাতত মুক্তি পাচ্ছে না।

তবে ‘এতো প্রেমে এতো মায়া’ নামের একটি সিনেমার সত্তর ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়ে আপাতত ত্রিশ ভাগ কাজের জন্য আটকে আছে। এই সিনেমাটি নির্মাণ করছেন মোস্তাফিজুর রহমান মানিক। এই পরিচালকেরই নির্দেশনায় ‘দুই নয়নের আলো’ সিনেমায় অভিনয় করে শাবনূর প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হয়েছিলেন। সেই একই পরিচালকের নির্দেশনায় পরবর্তীতে শাবনূর আরো কয়েকটি সিনেমাতে অভিনয় করেন।

কিন্তু ‘এতো প্রেম এতো মায়া’ সিনেমার কাজ শেষ হয়েও হচ্ছে না শেষ। কিন্তু কেন? জবাবে পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান মানিক বলেন,‘ শাবনূর আপার বর্তমান শারীরিক পরিস্থিতির কারণে সিনেমাটির কাজ আপাতত বন্ধ আছে। তবে তিনি চাইলেই সিনেমাটির কাজ শেষ করতে পারেন। কারণ তিনি একটু মুটিয়ে যাবার কারণে এখন আর তার এই মুটিয়ে যাওয়াটা গল্পের সঙ্গে যায়না। তিনি এক মাস চেষ্টা করলেই এটা পারবেন। একটু আন্তরিক হলেই শাবনূর আপা কাজটা শেষ করতে পারেন। বেশ কয়েকবার তিনি চেষ্টাও করেছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা আর হয়ে উঠেনি।’

শাবনূরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,‘ সত্যি বলতে কী সন্তানকে নিয়ে প্রতিদিনই আমাকে অনেক ব্যস্ত থাকতে হয়। তাছাড়া অন্যান্য আনুষঙ্গিক ব্যস্ততাতো আছেই। যে কারণে সিনেমাটিতে কাজ করার জন্য যে নিজের প্রতি একটু যত্ন নিবো সেটা আর হয়ে উঠছে না। তবে অবশ্যই ইচ্ছে আছে এতো প্রেম এতো মায়া সিনেমাটির কাজ শেষ করার।’

‘এতো প্রেম এতো মায়া’ সিনেমাটি প্রযোজনা করছেন মোঃ শাজাহান। মোস্তাফিজুর রহমান মানিকের নির্দেশনায় পরবর্তীতে শাবনূর ‘ মা আমার চোখের মনি’ , ‘কিছু আশা কিছু ভালোবাসা’ সিনেমাতেও অভিনয় করেন। ১৯৯৩ সালে এহতেশাম পরিচালিত ‘চাঁদনী রাতে’ সিনেমায় সাব্বিরের বিপরীতে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে সিনেমা জগতে শাবনূরের অভিষেক হয়।

পরবর্তীতে তিনি জহিরুল হকের ‘তুমি আমার’ সিনেমাতে সালমান শাহ’র বিপরীতে অভিনয় করে আলোচনায় আসেন। এরপর তিনি ‘বিক্ষোভ’, ‘আনন্দ অশ্রু’, ‘বিচার হবে’, ‘জীবন সংসার’, ‘স্বপ্নের পৃথিবী’, ‘স্বপ্নের ঠিকানা’, ‘মহা মিলন’, ‘সুজন সখী’, ‘প্রেমের অহংকার’, ‘তুমি শুধু তুমি’,‘অধিকার চাই’, ‘প্রেম পিয়াসী’, ‘ভালোবাসি তোমাকে’,‘ তুমি শুধু তুমি’, ‘মন মানেনা’, ‘পৃথিবী তোমার আমার’,‘ বিয়ের ফুল’,‘কাজের মেয়ে’, ‘সবার অজান্তে’,‘ ভুলোনা আমায়’, ‘এ বাঁধন যাবেনা ছিড়ে’,‘ গোলাম’, ‘এই মন চায় যে’,‘ কারিশ্মা’, ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ’, ‘প্রেমের তাজমহল’,‘মোল্লাবাড়ির বউ’সহ আরো অনেক দর্শকনন্দিত সিনেমায় অভিনয় করে দর্শকের ভালোবাসায় মুগ্ধ হয়েছেন।