দুর্যোগখেলালাইফ-স্টাইলস্বাস্থ্য

আটক ক্রিকেটার কে এই সাকিব?

স্পোর্টস ডেস্ক

ভুয়া (এএসপি) পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় এবং প্রতারণার অভিযোগে ক্রিকেটার আবু বকর ছিদ্দিকী সাকিবকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার রাতে সিলেটের ওসমানীনগরের রাউতখাই গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়।

এসময় বাংলাদেশ পুলিশের লোগো সম্বলিত একটি ওয়ালেট, এক জোড়া স্বর্ণের কানের দুল, এক জোড়া হাতের বালা, নগদ টাকা, বিভিন্ন মোবাইল কোম্পানির ৪টি সংযোগ, প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত মোবাইল, একটি ৮জিবি মেমোরি কার্ড, বিভিন্ন ব্যাংকের এটিএম কার্ড তার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এবং পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে ‘সাকিব কোনো পুলিশ কর্মকর্তা নয়’ বলে আগে নিশ্চিত হয় ওসমানীনগর থানা। পরে অভিযান চালিয়ে ওই গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী কামাল মিয়ার বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়।

সাকিব চাঁদপুর পুরানবাজার আমজাদ আলী রোডের দাসপাড়ার আবুল হোসাইন ঢালীর ছেলে। বর্তমানে সে ঢাকার ৮৮, কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউয়ে থাকে।

পুলিশ জানায়, আবু বকর নিজেকে সরকারি পাবলিক সার্ভিস কমিশনের ৩৭তম বিসিএসে উত্তীর্ণ পুলিশ ক্যাডারের কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দিত। প্রতারণার মাধ্যমে বিভিন্ন জায়গা থেকে অর্থ আত্মসাৎ করে আসছিল। বিষয়টি নজরে আসার পর পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে নজরদারির মাধ্যমে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় তাকে শনাক্ত করা হয়। একই সঙ্গে তার অবস্থান নিশ্চিত করা হয়।

পুলিশ আরও জানায়, আটকের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সাকিব নিজেকে ৩৭তম বিসিএস ক্যাডার হিসেবেই পরিচয় দেয়। এক বছরের মৌলিক প্রশিক্ষণ শেষে পুলিশ একাডেমি সারদা থেকে সমাপনী কুচকাওয়াজ শেষ করেছে বলে দাবি করে।

রোববার সাকিবের বিরুদ্ধে ওসমানীনগর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সুজিত কুমার চক্রবর্তী একটি এবং প্রতারণার দায়ে প্রবাসী কামাল আরেকটি মামলা করেছেন।

ওসমানীনগর থানার ওসি এসএম আল মামুন বলেন, নিজেকে পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে সে বিভিন্ন জায়গায় প্রতারণা করে আসছিল। পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স থেকে তথ্য পেয়ে আমরা তাকে আটক করতে সক্ষম হই।

সাকিব চাঁদপুরের বিভিন্ন ক্রিকেটারের সঙ্গেও এ ধরনের প্রতারণা করত বলে খবর পাওয়া গেছে। ঘটনার পর তার ব্যবহৃত ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে রাখা হয়েছে।

চাঁদপুরের একাধিক ক্রিকেটার জানান, চলতি বছর প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে উদয়ন ক্লাবের হয়ে চাঁদপুর স্টেডিয়ামে খেলেছিল আবু বকর ছিদ্দিকী। সে আগে থেকেই প্রতারক ধরনের। ২০১৯ বিশ্বকাপ খেলেছে বলে মানুষের কাছে নিজেকে প্রচার করত ও। একই সঙ্গে নিজেকে নাজমুস সাকিব বলে প্রচারণা চালাত। আসলে নাজমুস সাকিব খুলনার ক্রিকেটার। এমনকি কখনও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দিত।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button