স্বাস্থ্য

ভোগান্তি যখন বন্ধ নাকের সমস্যা

এমন খাপছাড়া আবহাওয়ায় বোঝা মুশকিল কখন বাইরে বৃষ্টি থাকবে আর কখন রোদ।
সকালে বৃষ্টি মাথায় বাসা থেকে বের হয়ে গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর আগেই দেখা যায় তীব্র রোদ উঠে গেছে। এমন অদ্ভুত আবহাওয়ায় ঠাণ্ডার সমস্যাটি একেবারেই হুট করে পেয়ে বসে। হাঁচি, কাশি, গলাব্যথার সঙ্গে যে সমস্যাটির জন্য বেশি ভুগতে হয় সেটা হলো- বন্ধ নাক। ঠাণ্ডা ও সর্দির প্রাদুর্ভাবে নাক বন্ধ হয়ে যাওয়ায় নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস বাধাপ্রাপ্ত হয়। এই সমস্যাটি দেখা দেওয়ার পেছনে মূলত তিনটি কারণ থাকে। ফ্লু, অ্যালার্জি ও সাইনাসের সমস্যা। যেকোন সমস্যার কারণেই নাক বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

বন্ধ নাকের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে ওষুধ কিংবা নোজ ড্রপ ব্যবহারের পরিবর্তে সহজ ও উপকারী উপায় মেনে চললেই তুলনামূলক ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে। তার কয়েকটি জেনে রাখুন।

গরম পানি পান করা:
চা কিংবা আদা চা নয়, বন্ধ নাকের সমস্যাটি কমাতে গরম পানি পান সবচেয়ে ভালো কাজ করবে। গরম পানি দ্রুত নাকের জমে থাকা সর্দি অপসারন করে। পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পানের ফলে মিউকাস উৎপন্ন হয়। যা পক্ষান্তরে নাকের বন্ধভাবকে ধীরে ধীরে খুলতে সাহায্য করে।

গরম পানিতে গোসল:
নিঃশ্বাস একেবারেই নিতে না পারলে দ্রুত গরম পানিতে গোসল করতে হবে। গোসল শরীরে প্রশান্তি আনে, ও গরম ভাপ বন্ধ নাক খুলে দেয়। এছাড়া গরম পানি ঠাণ্ডা ও অ্যালার্জিজনিত নাকের ভেতরের প্রদাহকে দ্রুত কমায়। ফলে শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক হয়।

গরম পানির ভাপ নেওয়া:
গোসল করতে না চাইলে গরম পানির ভাপ নেওয়া হবে সবচেয়ে কার্যকরী উপায়। এর জন্য ফুটন্ত গরম পানি একটি বড় বাটতে ঢেলে একটু নিচু স্থানে রাখতে হবে। বাটির উপরে মুখ রেখে বসে মাথার উপরে মোটা তোয়ালে ছড়িয়ে দিতে হবে। যেন পানির ভাপ বাইরে বের হতে না পারে। নাক ও মুখের সাহায্যে গরম পানির ভাপ টেনে নিতে হবে। এভাবে অন্তত ১৫ মিনিট গরম পানির ভাপ নিঃশ্বাসের সঙ্গে টেনে নিলে বন্ধ নাক খুলে যাবে পুরোপুরি। সমস্যাটি বেশি দেখা দিলে প্রতি দুই ঘন্টা অন্তর একবার করে এইভাবে গরম পানির ভাপ নিতে হবে

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button