জাতীয়লিড নিউজ

‘করোনা বাড়ছে-কমছে, অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখতে হবে’

অনলাইনে শিক্ষা পদ্ধতি চালু রাখার প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনার প্রাদুর্ভাব বেড়ে গেলে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে।

বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) সকালে ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ ও নতুন বছরের বই বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী জানান, সবার জন্য করোনার টিকা নিশ্চিত করতে প্রান্তিক পর্যায়ে নেওয়া হচ্ছে ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম।

মহামারির বাস্তবতায় পুরো বিশ্বেই পাল্টে গেছে শিক্ষা পদ্ধতি, জীবন ব্যবস্থা। সংক্রমণের আতঙ্কে সরাসরি পাঠদান পদ্ধতির বিপরীতে ইন্টারনেট ভিত্তিক যে বিকল্প ব্যবস্থা দাঁড়িয়েছে, সেই পদ্ধতিতেই এবার আয়োজিত হলো এসএসসির ফল প্রকাশের আনুষ্ঠানিকতা।

বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় আয়োজন করে চলতি বছরের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ ও নতুন বই বিতরণের জোড়া অনুষ্ঠানের। সরকার প্রধান শেখ হাসিনা ডিজিটাল পদ্ধতিতে উদ্বোধন করেন এ বছরের এসএসসির ফল।

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে ১১টি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরা ফলাফলের সারসংক্ষেপ তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রীকে। পরে ২০২২ শিক্ষাবর্ষের জন্য ৪ কোটি ১৭ লাখ ২৬ হাজার ৮৫৬ শিক্ষার্থীর মাঝে ৩৪ কোটি ৭০ লাখ ২২ হাজার ১৩০ কপি বই বিনামূল্যে বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়। প্রাক-প্রাথমিক থেকে শুরু করে মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের নতুন বই তুলে দেন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীরা।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মহামারির কথা বিবেচনায় নিয়ে প্রথাগত শিক্ষা পদ্ধতির পাশাপাশি অনলাইন পাঠদান চালিয়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি রাখার কোনো বিকল্প নেই।

শেখ হাসিনা বলেন, করোনা কখনো বড়ছে কখনো কমছে। আমরা সব সময় লক্ষ্য করেছি শীতের পরপরই এ প্রাদুর্ভাবটা বেড়ে যায়। কাজে এখন থেকেই শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে সে প্রস্তুতি নিতে হবে। অনলাইন শিক্ষা যেন সব ঘরে ঘরে পৌঁছায় সে ব্যবস্থা নিতে হবে।

এ সময় ডিজিটাল মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের সহায়তা করতে অভিভাবকদেরও আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, সবার কাছে টিকা পৌঁছে দিতে সব উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, ডিজিটাল শিক্ষা কার্যক্রমটা আমরা চালু করেছি। সেটা আমরা মোবাইল বা কম্পিউটার মাধ্যমে দিচ্ছি। এ ব্যপারে অভিভাবকদেরও এগিয়ে আসতে হবে, সহযোগিতা করতে হবে।

পুঁথিগত বিদ্যার সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষার্থীদের পুষ্টি সচেতনতা ও মানবিক শিক্ষা দিতেও অভিভাবক-শিক্ষকসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে অনুরোধ করেন সরকার প্রধান।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button