লিড নিউজ

গণপরিবহণ বন্ধ, সন্ধ্যার পর বাইরে নয়

সারা দেশে এক সপ্তাহের জন্য লকডাউন ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার।

সব ধরনের গণপরিবহন বন্ধ ঘোষণা করে রোববার এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

তবে জরুরি সেবাদানে নিয়োজিত পরিবহণ চলবে।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী সরকারি-বেসরকারি অফিস-আদালত এবং দোকানপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হবে।

তবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান জরুরি প্রয়োজনে নিজস্ব পরিবহণে করে কর্মীদের আনা নেয়া করতে পারবে।

সন্ধ্যা ৬টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বাইরে বের হওয়া যাবে না।

সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত খোলা জায়গায় কাচাবাজার বসতে পারবে। হোটেল-রেস্তোরাঁগুলো খাবার বিক্রি ও সরবরাহ করতে পারবে। তবে ক্রেতারা অবস্থান করতে পারবে না।

এর আগে শনিবার সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবনে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানিয়েছিলেন, কোভিড-১৯ সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকায় সোমবার (৫ এপ্রিল) থেকে সারাদেশ এক সপ্তাহের জন্য লকডাউন ঘোষণা করতে যাচ্ছে সরকার।

একই দিন এক ভিডিও বার্তায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, “করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ায় আগামী দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে এক সপ্তাহের জন্য সারাদেশে লকডাউনে যাচ্ছে সরকার। তবে শিল্প কলকারখানা খোলা থাকবে এবং সেগুলোতে শিফটিং ডিউটি চলবে।”

তিনি আরো বলেন, “আমরা জনগণের চলাচল একেবারে নিয়ন্ত্রিত করতে চাচ্ছি।”

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকায় গত ২৯ মার্চ সরকারের পক্ষ থেকে ১৮ দফা নির্দেশনা দেয়া হয়। এরপর এক সপ্তাহের জন্য লকডাউন ঘোষণা করা হলো।

দেশে সর্বশেষ শনিবার করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে ২৪ ঘণ্টায় ৫৮ জনের মৃত্যু এবং ৫ হাজার ৬৮৩ জনের শরীরে এই ভাইরাস শনাক্তের কথা জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

মহামারীতে দেশে মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে নয় হাজার ২১৩ জনে দাঁড়িয়েছে। শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাড়িয়েছে ছয় লাখ ৩০ হাজার ২৭৭ জনে।

দেশে গত বছরের ৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম রোগী সনাক্ত হওয়ার পর থেকে দেখা গেছে, আক্রান্তদের মধ্যে ৮৭ দশমিক ২৩ শতাংশ রোগী সুস্থ হয়েছেন এবং ১ দশমিক ৪৬ শতাংশ রোগী মারা গেছেন।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button