লিড নিউজ

সেপ্টেম্বরে যেভাবে খুলবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দ্রুত খুলে দিতে চাইছে সরকার। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে মঙ্গলবার থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শতভাগ শিক্ষককে উপস্থিত থাকতে নির্দেশনা দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল খোলার উপযুক্ত রাখতে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি) থেকে আঞ্চলিক পরিচালকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখারও নির্দেশনা দেওয়া হয়। দুভাগে ভাগ করে প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেওয়া হবে। তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণিতে সপ্তাহে দুদিন করে ক্লাস নেওয়া হবে। আর প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির ক্লাস সপ্তাহে এক দিন করে নেওয়া হবে। চলতি শিক্ষাবর্ষে পাঠ্যক্রম অনুযায়ী সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করা হবে। পঞ্চম শ্রেণিতে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা সশরীরে হবে নাকি মূল্যায়নভিত্তিক হবে নির্ভর করছে করোনা পরিস্থিতির ওপর। অন্যদিকে শুরুতেই বিশ্ববিদ্যালয় খোলার চিন্তা-ভাবনা  রয়েছে।
দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সেপ্টেম্বরে সচল হচ্ছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন সাত কলেজের পরীক্ষা ১ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ৮ সেপ্টেম্বর থেকে মাস্টার্সের স্থগিত পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করেছে। এভাবে অন্যান্য পাবলিক ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করেছে। নিম্ন মাধ্যমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে প্রতিদিন ক্লাস হবে না। চলতি বছরের নভেম্বরে এসএসসি ও ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এসএসসি পরীক্ষার সব প্রস্তুতি নিয়েছে শিক্ষা বোর্ডগুলো।
মঙ্গলবার এক অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, সংক্রমণের হার ক্রমেই নিচে নেমে আসছে- এটা আমাদের জন্য সুখবর। এ নিম্নগতি থাকলে শিগগিরই সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে পারব। ধাপে ধাপে খুলব। কারণ আমাদের শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীর সংখ্যা পৃথিবীর যেকোনো দেশের তুলনায় বেশি। কারণ এ অসুখে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা গুরুত্বপূর্ণ।
দীপু মনি বলেন, সবাই শুরু থেকেই সপ্তাহে ছয় দিন হয়তো ক্লাস করার সুযোগ পাবে না। একটু সময় নিয়ে হবে সেটা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার জন্য আমাদের সার্বিক প্রস্তুতি আছে। শুধু অপেক্ষা সংক্রমণের হার আরেকটু নিচে নামার।
সুরক্ষা নিশ্চিত করে প্রাথমিক স্কুল খুলে শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেওয়ার কথা জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন। মঙ্গলবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, দুভাগে হবে শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেওয়া হবে। এর মধ্যে তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণিতে সপ্তাহে দুদিন করে ক্লাস নেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। আর প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির ক্লাস সপ্তাহে এক দিন এক দিন করে নেওয়া হবে। তিনি বলেন, পাঠ্যক্রম অনুযায়ী সিলেবাস সংক্ষিপ্ত চিন্তা-ভাবনা করছি।
প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষার বিষয়ে জাকির হোসেন বলেন, সমাপনী পরীক্ষা সশরীরে হবে নাকি মূল্যায়নভিত্তিক হবে এ সিদ্ধান্ত পরিস্থিতি অনুযায়ী নেওয়া হবে। এ রকম যদি পরিবেশ থাকে তা হলে পরীক্ষা না নিয়ে আমরা গতবার যেভাবে মূল্যায়ন করেছি সেভাবে করব। আমরা যদি স্কুল খুলতে পারি তা হলে অবশ্যই স্বাস্থ্যসম্মতভাবে পরীক্ষা নেব।
স্কুল খোলার বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, যদি পরিবেশ ভালো থাকে তা হলে সেপ্টেম্বর বা অক্টোবরে আমরা স্কুল খুলে দিতে পারি। যেকোনো দিন স্কুল খোলার জন্য আমরা প্রস্তুত। প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিলেই আমরা স্কুল খুলে দেব। এর মধ্যে ৮৫ ভাগ শিক্ষকদের করোনার টিকা দেওয়ার কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। বাকিদেরও দ্রুত শেষ করা হবে।
দেশে করোনার প্রকোপ শুরু হলে গত বছরের ১৭ মার্চ সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়। জানা গেছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে তিন ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। একটি হচ্ছে শিক্ষক-কর্মচারীদের টিকা নেওয়া, দ্বিতীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো পরিষ্কার ও স্বাস্থ্যসম্মত প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলা এবং তৃতীয়টা হচ্ছে শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়ে নজর দেওয়া।
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের নির্দেশনার মধ্যে রয়েছে সহকারী উপজেলা-থানা শিক্ষা কর্মকর্তাদের এক সপ্তাহের মধ্যে শতভাগ বিদ্যালয় পরিদর্শন করতে হবে। ওয়ার্কশিট বিতরণ শতভাগ নিশ্চিত ও যাচাই করতে হবে। শিখন ঘাটতির অবস্থা ও ফিডব্যাক নিতে হবে। বিদ্যালয়ের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করতে হবে।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button