রংপুর বিভাগসারাদেশ

কুড়িগ্রামের হলোখানায় ছাত্রীকে উত্ত্যক্তে বাধা, কিশোরকে ছুরিকাঘাত

কুড়িগ্রাম: কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার হলোখানা ইউনিয়নে স্কুলগামী ছাত্রীদের উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ জানানোয় এক কিশোরকে ছুরিকাঘাতের অভিযোগ উঠেছে। রবিবার (১২ জুন) বেলা ১১টার দিকে সদরের হলোখানা ইউনিয়নের সুভারকুটি গ্রামের সাজেনার মোড় ব্রিজের কাছে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী কিশোরের বাবা বাদী হয়ে কুড়িগ্রাম সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
কুড়িগ্রাম সদর থানার ওসি খান মো. শাহরিয়ার অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
ছুরিকাঘাতে আহত কিশোরের নাম জামিল হোসেন (১৮)। সে সুভারকুটি গ্রামের আব্দুস ছাত্তারের ছেলে।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, রবিবার সুভারকুটি গ্রামের সাজেনার মোড় ব্রিজের কাছে ওই গ্রামের অহিদুল ইসলাম (২০), জাহিদ হাসান (২১) ও আনিছুর রহমানসহ (২০) চার-পাঁচ জন যুবক স্কুলগামী ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করছিল। এ সময় ওই পথ দিয়ে যাওয়ার সময় একই গ্রামের জামিল হোসেন (১৮) এবং তার বন্ধু সবুজ মিয়া (১৮) ও আশিক মিয়া (১৮) যাচ্ছিলেন। তারা এ ঘটনার প্রতিবাদ জানান। এতে অহিদুল ও তার সঙ্গীরা ক্ষিপ্ত হয়ে জামিল ও তার বন্ধুদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং তাদের ওপর চড়াও হয়। জামিল প্রতিবাদ করলে অহিদুল ও তার সঙ্গীরা জামিলকে কিল ঘুষি মারতে থাকে। এক পর্যায়ে অহিদুলের সঙ্গী জাহিদ হাসান জামিলকে পেছন থেকে জাপটে ধরলে অহিদুল তার পকেটে থাকা ছুরি বের করে জামিলের পেটে আঘাত করে।
পরে জামিলের বন্ধুরা চিৎকার শুরু করলে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে অভিযুক্ত যুবকরা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা জামিলকে উদ্ধার করে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।
এ ঘটনায় জামিলের বাবা আব্দুস ছাত্তার বাদী হয়ে অহিদুলসহ পাঁচ জনের বিরুদ্ধে কুড়িগ্রাম সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ছুরিকাঘাতে আহত কিশোর জামিল বর্তমানে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
অভিযুক্ত অহিদুলের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে। স্থানীয় একটি সূত্র জানিয়েছে, ঘটনার পর থেকে অহিদুল ও তার সঙ্গীরা পলাতক রয়েছে।
সদর থানার ওসি খান মো. শাহরিয়ার বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button