রাজশাহী বিভাগসারাদেশ

টিএমএসএস’র উদ্যোগে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

টিএমএসএস পরিচালিত বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিভাগ, ডোমেইন যথাযোগ্য মর্যাদায় গতকাল স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মহান স্বাধীনতা দিবস উদ্যাপন করে।

পুন্ড্র ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজিঃ পুন্ড্র ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজিতে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মহান স্বাধীনতা দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় ব্যাপক কর্মসূচির মধ্য দিয়ে উদ্যাপিত হয়েছে। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্যদিয়ে দিবসের কর্মসূচির শুভ সূচনা করা হয়। সকাল ৮.৩০টায় র‌্যালিসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তর্বক অপর্ণ করে মহান স্বাধীনতার যুদ্ধে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়। শহীদদের আত্মার শান্তি কামনায় ০১ মিনিট নীরবতা পালনসহ শহীদদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া পরিচালনা করা হয়। এরপর বেলা ৩.৩০টায় ভার্চুয়ালের প্লাটফর্মের মাধ্যমে “স্বাধিকার থেকে স্বাধীনতা” শীর্ষক এক আলোচনা সভা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. আ.ন.ম. রেজাউল করিম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রফেসর ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপ-উপাচার্য প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে স্বাধীনতা যুদ্ধের বীরত্বগাধা ইতিহাস স্ববিস্তারে তুলে ধরেন। প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. আনন্দ কুমার সাহা। তিনি তাঁর বক্তব্যে উল্লেখ করেন যে ৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৬৯’র গণ অভ্যুত্থান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৬ দফা, আগরতলার ষড়যন্ত্র মামলা, ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ, স্বাধীন বাংলাদেশ প্রাপ্তির একটি ধারাবাহিক উপখ্যান, দীর্ঘ ৫০ বছরে আমরা অনেক কিছু অর্জন করেছি সত্য তবে স্বাধীনতার সুফল পেতে আমাদেরকে চলতে হবে আরো অনেকটা পথ। আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. কামাল উদ্দীন ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্যার এফ রহমান হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. কে এম সাইফুল ইসলাম খান। গেস্ট অব অনার হিসেবে মূল্যবান বক্তব্য রাখেন অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব ট্রাস্টিজ এর মাননীয় চেয়ারম্যান ও টিএমএসএস প্রতিষ্ঠাতা নির্বাহী পরিচালক প্রফেসর ড. হোসনে-আরা বেগম। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ’র প্রফেসর, জুরি টু চেয়ারম্যান ও সদস্য বিওটি প্রফেসর ড. মোহা. হাছানাত আলী। আলোচনা সভায় অন্যানদের মধ্যে ছিলেন অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস প্রফেসর এম. আফজাল হোসেন, টিএমএসএস এর উপ-নির্বাহী পরিচালক ও বিওটি’র ভাইস চেয়ারম্যান ডাঃ মোঃ মতিউর রহমান, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর আনসার আলী তালুকদার। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন বিওটির সেক্রেটারী এ. এইচ. এম গোলাম রসুল খান রানা। স্বাধিকার থেকে স্বাধীনতা পর্যন্ত এই দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসামান্য অবদানকে বক্তাগণ শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ করেন।

টিএমএসএস গ্র্যান্ড হেল্থ সেক্টরঃ বাংলাদেশ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে সারা দেশের ন্যায় টিএমএসএস গ্র্যান্ড হেল্থ সেক্টর পরিচালিত অন্যতম টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ সহ সকল চিকিৎসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণে সকাল ৭.৩০ টায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। সকাল ৮.০০টায় শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি জানাতে প্রভাত ফেরি নিয়ে টিএমএসএস লালদহপার শহীদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। এর পাশাপাশি টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রফাতুল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতাল ভবনের নীচে দিনব্যাপী স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচী আয়োজন করা হয়। এরপর সকাল ৯.০০টায় ভার্চুয়াল আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রফাতুল্লাহ্ কমিউনিটি হাসপাতালের শিশু বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও মুজিববর্ষ উদযাপন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ মোঃ রফিকুল ইসলাম। এসময় ভার্চুয়াল আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন টিএমএসএস’র উপ-নির্বাহী পরিচালক-২, রোটা. ডাঃ মোঃ মতিউর রহমান, টিএমএসএস মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ মোঃ শাহজাহান আলী সরকার, টিএমএসএস গ্র্যান্ড হেল্থ সেক্টরের স্বাস্থ্যসেবা ডোমেইন প্রধান ডাঃ মোঃ আব্দুল হক, টিএমএসএস গ্র্যান্ড হেল্থ সেক্টরের চিকিৎসা শিক্ষা ডোমেইন-১ প্রধান অধ্যাপক ডাঃ অনুপ রহমান চৌধুরী, চিকিৎসা শিক্ষা ডোমেইন-২ প্রধান ডাঃ এএইচএম আক্তারুজ্জামান, টিএমএসএস মেডিকেল কলেজের ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডাঃ এম,এ গফুর মন্ডল, টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রফাতুল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ আবু সালেহ মোহাম্মদ বরকতুল্লাহ, সহকারী পরিচালক (হাসপাতাল) ডাঃ এ.কে এম শামছুল আলম, মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডাঃ মোঃ জাকির হোসেন, উপ-পরিচালক ডাঃ মোঃ আফজাল হোসেন তরফদার, টিএমএসএস মেডিকেল ইনষ্টিটিউট অব রিসার্চ এন্ড টেকনোলজী ও মহাস্থান মেডিকেল এ্যাসিসটেন্ট ট্রেনিং স্কুলের অধ্যক্ষ ডাঃ মোঃ আহমেদ শরীফ, টিএমএসএস নার্সিং কলেজের অধ্যক্ষ রাবেয়া বেগম এবং হাসপাতালের নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আলমগীর হোসেন সহ টিএমএসএস গ্র্যান্ড হেলথ সেক্টর পরিচালিত অন্যান্য চিকিৎসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষবৃন্দ ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাবৃন্দ। এছাড়াও টিএমএসএস মেডিকেল কলেজের শিক্ষক-শিক্ষিকা, চিকিৎসক এবং কর্মকর্তাবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও টিএমএসএস গ্র্যান্ড হেল্থ সেক্টর পরিচালিত চিকিৎসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ২০০ জন ছাত্র-ছাত্রীরা অংশগ্রগণ করেন। ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন পূর্ব পাকিস্তানের রাজনৈতিক স্বায়ত্তশাসন অর্জনের প্রয়াস এবং পরবর্তীকালে ১৯৭১ খ্রিষ্টাব্দে বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলন ও বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পেছনের কেন্দ্রীয় ব্যক্তিত্ব হিসেবে মুজিবকে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র হিসেবে কৃতিত্ব দেয়ার পাশাপাশি প্রাচীন বাঙালি সভ্যতার আধুনিক স্থপতি হিসেবেও বিবেচনা করা হয়। এ সকল কারণে তাকে বাংলাদেশের “জাতির জনক” বা “জাতির পিতা” হিসেবে গণ্য করা হয়। তার কন্যা শেখ হাসিনা বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযুদ্ধের চেতনা জাতির জনকের অসমাপ্ত স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথে ইতিমধ্যেই আমরা অর্থনৈতিকভাবে নিম্ন আয়ের দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে উত্তরণ ঘটাতে সক্ষম হয়েছি এখন আমাদের নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা বহুমুখী সেতু রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র মাতারবারি গভীর সমুদ্রবন্দর মেট্রোরেল কর্ণফুলী টানেল প্রকল্প সমুহ বাংলাদেশের সক্ষমতা জয়গান গাইছে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। দেশকে উন্নত দেশ করার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রস্তুত করব এবং সততা নিষ্ঠা এবং দেশপ্রেমের মাধ্যমে আমরা সামনে এগিয়ে যাব এবং আমরা আজকের এই মহান স্বাধীনতা দিবসে আমরা সেই শহীদ মুক্তিযোদ্ধা যারা দেশের জন্য জীবন উৎসর্গ করেছেন সম্ভ্রম হারিয়েছেন তাদের প্রতি জানাই বিনম্র শ্রদ্ধা। ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণে ভার্চুয়ালের মাধ্যমে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে দেশাত্ববোধক গান ও নাচ পরিবেশন করেন। অনুষ্ঠানে বক্তারা স্বাধীনতা অর্জনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দিক তুলে ধরেন। বঙ্গবন্ধুর ও শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া পাঠ করেন টিএমএসএস মেডিকেল ইনষ্টিটিউট অব রিসার্চ এন্ড টেকনোলজী ও মহাস্থান মেডিকেল এ্যাসিসটেন্ট ট্রেনিং স্কুলের অধ্যক্ষ ডাঃ মোঃ আহমেদ শরীফ। সমাপনী বক্তব্য রাখেন টিএমএসএস মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ মোঃ শাহজাহান আলী সরকার। ভার্চ্যুয়াল আলোচনা সভা পরিচালনা করেন টিএমএসএস মেডিকেল কলেজের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোঃ সজিবুর রহমান। সভাপতি মহোদয় সমাপনি বক্তব্যের মাধ্যমে অতিথিসহ সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন। এছাড়াও টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রফাতুল্লাহ্ কমিউনিটি হাসপাতালে অবস্থানরত রোগীদের মাঝে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়।

টিএমএসএস ইন্সটিটিউট অব সায়েন্স এ্যান্ড আইসিটি এবং টিএমএসএস ফিরোজা বেগম আয়ুর্বেদিক-ইউনানী মেডিকলে কলেজ ও হাসপাতালঃ ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের নিমিত্ত্বে টিএমএসএস ইন্সটিটিউট অব সায়েন্স এ্যান্ড আইসিটি এবং টিএমএসএস ফিরোজা বেগম আয়ুর্বেদিক-ইউনানী মেডিকলে কলেজ ও হাসপাতাল কর্তৃক যৌথভাবে আয়োজনের মাধ্যমে শাজাহানপুর উপজেলা চত্ত্বরের শহীদ মিনারে মহান শহীদ বীর সন্তানদের প্রতি পুস্পস্তবক অর্পন করে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন টিআইএসআই ও টিএফএইউএমসিএইচ-এর অধ্যক্ষসহ সকল স্তরের শিক্ষক, শিক্ষিকা, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ। পরে এক আলোচনায় সভায় অনলাইনে/ভার্চুয়াল মাধ্যমে বক্তব্য রাখেন টিএমএসএস এর পরিচালনা পর্ষদের সম্মানীত ট্রেজারার আয়শা বেগম, পরিচালক (আইসিটি) নিগার সুলতানা, নির্বাহী পরামর্শক মোহাম্মেদ খাইরুল ইসলাম এবং টিআইএসআই ও টিএফএইউএমসিএইচ-এর অধ্যক্ষসহ উপস্থিত শিক্ষার্থী ও শিক্ষক, কর্মকর্তাবৃন্দ। আলোচনা সমাপণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ করা হয়।
টিএমএসএস পাবলিক স্কুল এ্যান্ড কলেজঃ টিএমএসএস পাবলিক স্কুল এ্যান্ড কলেজ, বগুড়ায় যথাযথ মর্যাদার সাথে ‘মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস’ উদ্যাপন করা হয়। এ উপলক্ষ্যে ভার্চুয়াল প্লাটফর্ম ব্যবহার করে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেঝে, স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে অত্র প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, শিক্ষক ও কর্মচারীগণের উপস্থিতিতে আলোচনা সভা ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। উক্ত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে দেশাত্মবোধক সংগীত ও নৃত্য পরিবেশন করা হয়।

টিএমএসএস টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউটঃ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস যথাযথ মর্যাদায় সহিত উদযাপন উপলক্ষে টিএমএসএস টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউট এর উদ্যোগে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আলোচনা সভা, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও রিলিজিয়াস কমপ্লেক্স এর উদ্যোগে টিএমএসএস আলিম মাদ্রাসা, টিএমএসএস অটিজম স্কুল, টিএমএসএস এতিমখানা যথাযথ মর্যাদায় স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করে।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button