রাজশাহী বিভাগসারাদেশ

শেরপুরে সড়ক র্দূঘটনায় নিহত ৪: আহত ১০

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি: বগুড়ার শেরপুরে যাত্রীবাহী দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালকসহ চারজন নিহত ও অন্তত দশজন যাত্রী গুরুতর আহত হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার (১৯মার্চ) দিনগত রাত অনুমান দুইটার দিকে উপজেলার গাড়ীদহ ইউনিয়নের দশমাইল নামক স্থানে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কে এই দুর্ঘটনা ঘটে। আহতদেরকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে বগুড়ায় শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন- রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার কারবিখান এলাকার রাজা মিয়ার ছেলে বাস চালক রওশন আলী (৩৫), নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলার খড়িবাড়ী এলাকার সিরাজুল ইসলামের ছেলে রেজাউল করিম সাগর (২৩), একই এলাকার মানিক মিয়ার ছেলে গোলাম মোস্তফা (১৮) ও মিঠাপুকুর উপজেলার পশ্চিম ছাতনাই গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে বাবলু মিয়া (৫০)।
এছাড়া গুরুতর আহত নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলার রনি সরকার (২০), ফরিদুল ইসলাম (২০) আল আমিন (২০), ফজলা মিয়া (৫০), আজিদুল ইসলাম (৩০) সিরাজুল ইসলামকে (৩৫) বগুড়ার শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আর বাকি আহতরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি চলে যাওয়ায় তাদের নাম পরিচয় জানা যায়নি।
শেরপুর ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন কর্মকর্তা রতন হোসেন এই তথ্য নিশ্চিত করে জানান, ঢাকাগামী নাবিল পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস মহাসড়কের উক্ত স্থানে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা সৃষ্টি পরিবহন নামের আরেকটি যাত্রীবাহী বাসের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই সৃষ্টি পরিবহন বাসের চালকসহ দুইজন নিহত হন। আর দুর্ঘটনায় গুরুতর আহতদের দ্রুত উদ্ধার করে বগুড়ার শজিমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়। এরমধ্যে হাসপাতালে পৌঁছার আগেই আরও দুইজন যাত্রী মারা যান বলে জানান এই স্টেশন কর্মকর্তা।
এদিকে দুর্ঘটনার পর দুর্ঘটনা কবলিত বাস দুটি মহাসড়কের মধ্যে আঁড়াআঁড়িভাবে পড়ে থাকায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এসময় মহাসড়ের উভয়পাশে প্রায় দুই কিলোমিটার এলাকাজুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। প্রায় দুই ঘন্টা পর যানচলাচল স্বাভাবিক হয়ে আসে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শেরপুর হাইওয়ে পুলিশের দশমাইল ক্যাম্পের ইনচার্জ বানিউল আনাম বলেন, দুর্ঘটনার পর যান চলাচল বন্ধ থাকলেও তাদের হস্তক্ষেপে কিছু সময় পরেই যান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে আসে। দুর্ঘটনা কবলিত বাস দুটি জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button