চট্টগ্রাম বিভাগসারাদেশ

ঢাকায় পৌঁছেছে মওদুদের মরদেহ, শুক্রবার নোয়াখালীতে দাফন

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী মওদুদ আহমদের মরদেহ ঢাকায় পৌঁছেছে।
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সিঙ্গাপুর থেকে আসার পর বিমানবন্দর থেকে মরদেহ তার গুলশানের বাড়িতে নেয়া হয়েছে। আগামীকাল শুক্রবার জন্মস্থান নোয়াখালীতে তাকে দাফন করা হবে।

ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মরদেহ পৌঁছানোর পর আনুষ্ঠানিকতা ​শেষে তা গ্রহণ করেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ কেন্দ্রীয় নেতারা। এ সময় আবেগাপ্লুত মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের বলেন, বাংলাদেশের এই সংকটময় মুহূর্তে, গণতন্ত্রের সংকটকালে তার (মওদুদ আহমদ) চলে যাওয়া দেশের জন্য, বিএনপির জন্য বড় ক্ষতি হয়েছে, তা কখনো পূরণ হওয়ার নয়। তার মতো মানুষ খুব কম আসেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, মওদুদ আহমদ একজন উদার গণতান্ত্রিক মানুষ ছিলেন এবং আজীবন তিনি গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম ​করেছেন। তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। ভাষা আন্দোলন করেছেন। তিনি অনেক কষ্ট করেছেন, তার বাড়িটা পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আজ দেশের চরম অগণতান্ত্রিক পরিবেশে ৩২টি মামলা নিয়ে তাকে চলে যেতে হলো।

১৬ মার্চ সন্ধ্যায় সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথে চিকিৎ​সাধীন অবস্থায় মওদুদ আহমদ মারা যান। গত ১ ফেব্রুয়ারি তাকে সিঙ্গাপুর নেওয়া হয়েছিল। সেখানে মওদুদের পাশেই ছিলেন স্ত্রী হাসনা জসীমউদদীন মওদুদ। তিনিও স্বামীর মরদেহের সঙ্গে ঢাকায় ফিরেছেন। বিমানবন্দর থেকে মরদেহ রাত আটটায় গুলশানের বাসায় নেওয়া হয়।

বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, মওদুদ আহমদের মরদেহ রাতে এভারকেয়ার হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হবে। কাল শুক্রবার সকাল নয়টায় সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য তার মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেওয়া হবে। এরপর সকাল ১০টায় হাইকোর্ট প্রাঙ্গণে, বেলা ১১টায় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে মওদুদ আহমদের জানাজা হবে। তারপর মরদেহ নেওয়া হবে মওদুদ আহমদের গ্রামের বাড়ি নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার মানিকপুরে। সেখানে বাদ জুমা কবিরহাট সরকারি কলেজ মাঠ ও বিকেল চারটায় কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাট সরকারি মুজিব কলেজ মাঠে দুটি জানাজা হবে। মানিকপুরে শেষ জানাজার পর সেখানেই তাকে দাফন করা হবে।

মওদুদের মরদেহ গ্রহণ করতে বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ, ভাইস চেয়ারম্যান বরকতউল্লাহ, মো. শাহজাহান, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য জয়নাল আবদিন ফারুক, আমানউল্লাহ আমান, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, মাহবুব উদ্দিন খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা নাজিম উদ্দিন আলম, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী, শামীমুর রহমান, তাবিথ আউয়াল, ইশরাক হোসেন, এলডিপির মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম প্রমুখ।

মওদুদ আহমদের মৃত্যুতে শোক কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি। প্রয়াত এই নেতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দলীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা এবং কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button