জাতীয়

পিয়াসা ৮ দিনের রিমান্ডে

বিপুল পরিমাণ মাদকসহ রাজধানীর বারিধারা থেকে গ্রেফতার মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসার বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া পৃথক তিন মামলায় আবারও আট দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।
গুলশান থানার মামলায় দুই দিন, ভাটারা থানার মামলায় তিন দিন এবং খিলক্ষেত থানার মামলায় তিন দিন রিমান্ড মঞ্জুর হয় পিয়াসার।
শুক্রবার (৬ আগস্ট) দুপুর সাড়ে ১২টায় তিন দিনের রিমান্ড শেষে তাকে আদালতে হাজির করে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ। পরে গুলশান থানার মামলায় সাত দিন, ভাটারা থানার মামলায় ১০ দিন এবং খিলক্ষেত থানার মামলায় সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়।
আদালতে  আসামি পক্ষের আইনজীবী রিমান্ডের আবেদন বাতিল পূর্বক জামিনের আবেদন করেন। এছাড়া রাষ্ট্রপক্ষে জামিনের আবেদনের বিরোধিতা করে শুনানি করেন মহানগর পিপি আব্দুল্লাহ আবু। শুনানিতে তিনি বলেন, পিয়াসার সহযোগী জিসানের গরুর ব্যবসার আড়ালে মডেল পিয়াসা ও মিশু মাদকের কারবার করতেন।
রাষ্ট্রপক্ষের এমন বক্তব্যে আদালতের অনুমতি নিয়ে এ দাবির বিপরীতে পিয়াসা বলেন, আমার বাবা ব্যারিস্টারি পড়াশোনা করেছেন। আমি নিজেও ২০২১ সাল পর্যন্ত চাকরি করেছি। এশিয়ান টিভিতে চাকরি করেছি। আমি মাদকের সঙ্গে জড়িত নই। জিসান ও মিশু আমার বন্ধু। জিসানের স্ত্রীর সঙ্গে আমার ভালো বন্ধুত্ব। আমি গরুর ব্যবসা করতে যাব কেন? পিয়াসা আরও বলেন, স্যার, একটি বিষয় বলে রাখি।
আপন জুয়েলার্সের ছেলের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়েছিল। আমি বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে বিভিন্ন বক্তব্য দিয়েছি। তারপর থেকেই আমাকে বিভিন্ন হুমকির মুখে পড়তে হচ্ছে। হঠাৎ করে একদিন রাতে আমার বাসায় ডিবি পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে।
পরে বলা হয় আমার বাসায় নাকি ৬৭ পিস ইয়াবা পাওয়া গিয়েছে। আমি ইয়াবার সঙ্গে জড়িত নই।  উভয় পক্ষের শুনানি শেষে মহানগর হাকিম রাজেশ চৌধুরী জামিনের আবেদন নাকচ করে গুলশান থানার মামলায় দুই দিন, ভাটারা থানার মামলায় তিন দিন ও খিলক্ষেত থানার মামলায় তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
গত ২ আগস্ট গুলশান থানার মাদক আইনের এক মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পিয়াসার তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
গত ১ আগস্ট রাত ১০টার দিকে পিয়াসার বারিধারার ৯ নম্বর রোডের ৩ নম্বর বাসায় অভিযান চালায় গোয়েন্দা পুলিশের গুলশান বিভাগের একটি দল । এ সময় তার ঘরে টেবিল থেকে চার প্যাকেট ইয়াবা জব্দ করে ডিবি। তার রান্নাঘরের ক্যাবিনেট থেকে নয় বোতল বিদেশি মদ উদ্ধার করা হয়। ফ্রিজে পাওয়া যায় সিসা তৈরির কাঁচামাল। বেশ কয়েকটি ই-সিগারেট পাওয়া যায় তার বাসায়। পিয়াসার চারটি স্মার্টফোনও জব্দ করে ডিবি। পরে রাত পৌনে ১২টার দিকে তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডিবি কার্যালয়ে নেয়া হয়। পুলিশ জানায়, মডেল পিয়াসা ও মৌ সংঘবদ্ধ একটি চক্র। তারা পার্টির নামে উচ্চবিত্তদের বাসায় ডেকে মদ ও ইয়াবা খাইয়ে আপত্তিকর ছবি তুলে রাখতেন। পরে সেই ছবি দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিতেন।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button