জাতীয়

প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপির মানববন্ধন

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিনটিকে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ দাবি করে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রতিবাদী মানববন্ধনের  করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল- বিএনপি।

বুধবার (৫জানুয়ারি) সকাল ১০ টায় ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে এই মানববন্ধন শুরু হয়েছে।

মানববন্ধনে অংশ নিতে এরই মধ্যে সহস্রাধিক দলীয় নেতা-কর্মী প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে জড়ো হয়েছেন। তারা খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবিতে নানা রকমের স্লোগান দিচ্ছেন।

এই কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে বক্তব্য দেবেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ইতোমধ্যে উপস্থিত হয়েছেন মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক ডাকসুর সাবেক ভিপি আমান উল্লাহ আমান, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, সহ-প্রচার সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীম, নির্বাহী কমিটির সদস্য সাবেক ছাত্রনেতা নাজিম উদ্দিন আলম, মহানগর উত্তর বিএনপির সদস্য সচিব আমিনুল হক, মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সহ-সভাপতি নবী উল্লাহ নবী, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূইয়া জুয়েল, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, সিনিয়র সহ-সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবন, শ্রমিকদল নেতা মোস্তাফিজুল করিম মজুমদার প্রমুখ।

এর আগে মঙ্গলবার (৪জানুয়ারি) নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে দলটির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই কর্মসূচি ঘোষণা করে বলেন, জনগণের ভোটাধিকার হরণ করতে পরিকল্পিতভাবে আওয়ামী লীগ সরকার ২০১১ সালে সংবিধান থেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার পদ্ধতি বাতিল করে দিয়েছিল। এরপর যে কোনো উপায়ে ক্ষমতা কুক্ষিগত করতে তারা প্রস্তুতি নিতে থাকে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি জাতীয় নির্বাচন থেকে শুরু এখন পর্যন্ত যতগুলো নির্বাচন হয়েছে তা ছিল উদ্ভট। যা ছিল এক তরফা প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন নিশিরাতে ব্যালটবাক্স ভর্তি করা, পাইকারি হারে জাল ভোট দেওয়া। ভোট ডাকাতি, লাশের ভোট প্রদান, গায়েবি ভোট, বিরোধীদলের এজেন্টদের ভোটকেন্দ্রে ঢুকতে না দেওয়াসহ একের পর এক অভিনব ভোট।

তিনি বলেন, এই সরকার গায়ের জোরে জনগণের ম্যান্ডেটকে গুরুত্ব না দিয়ে জনগণকে বঞ্চিত করে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি একতরফা নির্বাচন করেছিল। এটি সম্পূর্ণরূপে গণতন্ত্রকে হত্যা করা। আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র হত্যার এক নিষ্ঠুর কসাইয়ে পরিণত হয়েছে। সেজন্য আগামী ৫ জানুয়ারি ঢাকা মহানগরসহ দেশের সব জেলা শহরে প্রতিবাদী মানববন্ধন পালিত হবে।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button