জাতীয়

হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা

আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে রাজধানীর পল্লবী থানায় টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইনের তিনটি ধারায় মামলা করা হয়েছে।

র‌্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়, শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইনের ৩৫, ৫৫ ও ৭৩ ধারায় এই মামলা করা হয়েছে।

পল্লবী থানার  থানার ডিউটি অফিসার উপ-পরিদর্শক নাসির উদ্দিন জানান, র‌্যাব-৪ এর উপ-পরিদর্শক ইদ্রিস আলী রাত সাড়ে ১১টার দিকে মামলাটি দায়ের করেন।

সরকারি অনুমোদন ও লাইসেন্স ছাড়াই ‘জয়যাত্রা আইপিটিভি’ পরিচালনা এবং অবৈধভাবে এর অফিস পরিচালনার জন্য মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।

এর আগে শুক্রবার গুলশান থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তার নামে মামলা করা হয়। এই মামলায় হেলেনা জাহাঙ্গীরের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

এ বিষয়ে গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান শুক্রবার বলেন, “হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে র‌্যাবের পক্ষ থেকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা করা হয়েছে। এছাড়া আরেকটি মামলার প্রস্তুতি চলছে।”

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর কুর্মিটোলায় র‌্যাব সদর দপ্তরে আয়োজিত এক ব্রিফিংয়ে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক খন্দকার আল মঈন জানিয়েছিলেন, হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, টেলিযোগাযোগ আইন, বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইন, বিশেষ ক্ষমতা আইন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে পাঁচটি মামলার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

তিনি আরও জানিয়েছিলেন, হেলেনা জাহাঙ্গীরের বাসায় র‍্যাবের অভিযানে বিদেশি মদ পাওয়ার ভিত্তিতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে, ওয়াকিটকি পাওয়ায় টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইনে, হরিণের চামড়া পাওয়ায় বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনে মামলা করা হবে। এছাড়া অভিযানে ক্যাঙ্গারুর চামড়া পাওয়া গেছে উল্লেখ করে তিনি জানান, এজন্য বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি মামলা হবে।

হেলেনা জাহাঙ্গীর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে বিভিন্ন অপপ্রচার, মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রচার করার কারণে তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আরেকটি মামলা করা হবে বলেও জানিয়েছিলেন র‍্যাব কর্মকর্তা খন্দকার আল মঈন।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে হেলেনা জাহাঙ্গীরের গুলশানের বাসায় অভিযান চালায় র‍্যাব। অভিযানের পর রাত সোয়া ১২টার তাকে আটক করা হয়। ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে মিথ্যাচার ও সম্মানহানির অভিযোগে তার বাসায় এ অভিযান চালানো হয়।

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক কেন্দ্রীয় উপকমিটির সদস্য ছিলেন হেলেনা জাহাঙ্গীর। তবে, গত রোববার উপকমিটির দেয়া এক বিজ্ঞপ্তিতে সেই পদ থেকে তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে বলে জানানো হয়।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button