জাতীয়

১১ আগস্ট থেকে থাকছে না বিধিনিষেধ

করোনা সংক্রমণ রোধে ঈদের পর ২৩ জুলাই থেকে শুরু হওয়া লকডাউনের বিধিনিষেধ ১১ আগস্ট থেকে প্রায় অনেকটাই তুলে নেওয়া হচ্ছে। ওইদিন থেকে সব সরকারি-আধাসরকারি-স্বায়ত্তশাসিত অফিস, ব্যাংক, দোকানপাট ও শপিংমল এবং গণপরিবহন ‘স্বাস্থ্যবিধি মেনে’ চালু করার অনুমতি দিয়ে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার।
মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জারি করা গতকালের প্রজ্ঞাপন বলা হয়, আগামী ১১ আগস্ট থেকে বাস, লঞ্চ ও ট্রেনসহ সব ধরনের গণপরিবহন শতভাগ আসনে যাত্রী নিয়ে চলাচল করতে পারবে। তবে গণপরিবহন চলবে অর্ধেক। অর্থাৎ একটি রুটে যে পরিমাণ গণপরিবহন চলাচল করে তার অর্ধেক চলবে এক দিন। আর বাকি অর্ধেক চলবে পরের দিন। স্থানীয় প্রশাসন ঠিক করে দেবে কোন দিন কোন পরিবহন চলবে।
এ ছাড়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকানপাট ও শপিংমল সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এবং খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁ সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা রাখা যাবে। স্বাস্থ্যবিধি না মানলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়। এ ছাড়া ১ আগস্ট থেকে চালু হওয়া শিল্প-কারখানাও চালু থাকবে।
প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ার আগে রোববার দুপুরে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানান, মানুষের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করে ধাপে ধাপে বিধিনিষেধ শিথিল করা হবে। সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, কতটুকু কীভাবে শিথিল করা হবে, সেসব বিষয় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিলেই জানাতে পারব। তিনি বলেন, আমরা মাস্ক পরার ওপর জোর দিয়েছি। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। আগামী দিনেও সবাইকে মাস্ক পরেই কাজ করতে হবে। একমাত্র
মাস্ক পরলে করোনা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে। তিনি আরও বলেন, যেহেতু দোকানপাট খুলতে হবে, সবাই যাতে স্বাস্থ্যবিধি মানে সেদিকে আমাদের জোর থাকবে। রোববার থেকে গণটিকা চালু করেছি, এটি ১২ আগস্ট পর্যন্ত চলবে। টিকাদানের ক্ষেত্রে দোকানদার, মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিন, গাড়ির চালক ও তাদের সহকারীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। সে সঙ্গে যাদেরকে ঘরের বাইরে আসতে হয়, মানুষের সঙ্গে মিশতে হয়, তাদেরকেও আগে টিকা দেওয়া হবে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, গণটিকা কার্যক্রমে প্রতি ইউনিয়নে ৬০০ জনকে টিকা দিয়েছি। সবজি ব্যবসায়ী, রিকশাচালকসহ যাদের বাইরে আসতে হয়, তাদের বেছে নিয়েছি। সেখানে বয়স্ক ও মুক্তিযোদ্ধারাও আছেন।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button