রাজনীতি

ভোটগ্রহণ শেষে চলছে গণনা

বিচ্ছিন্ন সংঘর্ষের মধ্যদিয়ে দ্বিতীয় ধাপের ৮৩৫ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ভোট গ্রহণ শেষে চলছে গণনা। বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) সকাল ৮টা থেকে একটানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে ভোটগ্রহণ।

সকালে কেন্দ্রগুলোতে ভোটার সংখ্যা কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে। তবে বেশ কয়েকটি কেন্দ্র ও এলাকায় নির্বাচনী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে কমপক্ষে ৭ জন নিহত হয়েছে।

এরমধ্যে কুমিল্লার মেঘনা উপজেলার দুই ভোটকেন্দ্রে হামলায় দুইজন, কক্সবাজারের সদর উপজেলায় কুরুশখুল ইউনিয়নে দুই সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে একজন, ফটিকছড়ি উপজেলার লেলাং ইউনিয়নে দুই সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে একজন, নরসিংদীর রায়পুরার বাঁশগাড়ি ইউনিয়নে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সহিংসতায় গুলিতে তিনজন নিহত হয়েছেন।এছাড়া আরও বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে সংঘর্ষে প্রায় শতাধিক আহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

দ্বিতীয় ধাপে ৮৪৮ ইউপি ভোটের তফসিল ঘোষণা করা হলেও আজ ভোট গ্রহণ হয়েছে ৮৩৫ ইউপিতে। ৫ ইউপির সব পদে জনপ্রতিনিধিরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া ৭ ইউপি ভোট স্থগিত করেছে ইসি এবং ১ ইউপির ভোট বাতিল করা হয়েছে।

ইসির তথ্যমতে, দ্বিতীয় ধাপে চেয়ারম্যান পদে ৮১, সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ৭৩ ও সাধারণ সদস্য পদে ২০৩ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

এই ধাপের ইউপিতে মোট ভোটকেন্দ্র ৮ হাজার ৪৯২টি। মোট ভোটার এক কোটি ৬৫ লাখ ৯৫ হাজার ২২৬ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৮৪ লাখ ৫ হাজার ৮৩১ জন এবং নারী ভোটার ৮১ লাখ ৮৯  হাজার ৩৭৯ জন। তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার রয়েছেন ১৬ জন। চেয়ারম্যান পদে ৩ হাজার ৩১০ জন, সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ৯ হাজার ১৬১ জন এবং সাধারণ সদস্য পদে ২৮ হাজার ৭৪৭ জন প্রার্থী রয়েছেন। তিন পদে মোট প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৪১ হাজার ২১৮ জন প্রার্থী।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button