খেলা

কুইনের মাথায় রানীর মুকুট

পুয়ের্তো রিকোর কুইন এখন অলিম্পিক কুইন। ক্রীড়া দুনিয়াকে চমকে দিয়ে মেয়েদের ১০০ মিটার হার্ডলসে স্বর্ণ জিতেছেন পশ্চিম ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জের দেশ পুয়ের্তো রিকো। ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ড থেকে দেশটির ইতিহাসে অলিম্পিকে প্রথম স্বর্ণ জয়ের কৃতিত্ব দেখালেন জেসমিন কামাচা-কুইন। এটা অলিম্পিকে দেশটির দ্বিতীয় স্বর্ণ। এর আগে ২০১৬ সালে রিও গেমসে টেনিস থেকে স্বর্ণ উৎসব করেছিলেন পুয়ের্তো রিকোর মনিকা পুইগ।
সোমবার টোকিওর ট্র্যাকে মেয়েদের ১০০ মিটারে বিশ^চ্যাম্পিয়ন কেন্দ্রা হ্যারিসনকে হারিয়ে রানীর মুকুট পরেছেন কুইন। সময় নিয়েছেন ১২.৩৭ সে.। রুপাজয়ী হ্যারিসনের টাইমিং ১২ .৫২ সে.। এ নিয়ে টানা ষষ্ঠ অলিম্পিকে পদক জয়ের কীর্তি গড়লেন যুক্তরাষ্ট্রের এই বিশ^খ্যাত হার্ডলার। এই ইভেন্টে ব্রোঞ্জ পেয়েছেন জ্যামাইকার মেগান ট্যাপার।
হার্ডলসের নতুন রানীর মুকুট পরার পর উচ্ছ্বসিত কুইন বলেন, আমার কাছে এই স্বর্ণ জয়ের অর্থ ব্যাপক। আমি মনেপ্রাণে স্বর্ণপদক জিততে চেয়েছিলাম এবং আমি এটা পেরেছি।
২৪ বছর বয়সি কুইনের জন্য কাজটা মোটেও সহজ ছিল না। সম্পূর্ণ নিজের চেষ্টায় কীভাবে এতদূর এসেছেন, বলেছেন সেই গল্পও। তার ভাষায়, আমার কোনো ট্রেনিং পার্টনার ছিল না। আমি নিজেকেই নিজে তৈরি করেছি। আমি আমার সবটুকু দিয়ে নিজেকে তৈরি করেছি। আমি শুধু দৌড়াতে চেয়েছি। টাইমিং নিয়ে মাথা ঘামাইনি। আমার লক্ষ্য ছিল সবার আগে পৌঁছানো। যোগ করেন, আমি নিজের কাছেই একটা চ্যালেঞ্জ নিয়েছিলাম। গ্রেটদের পাশে আমার নামও থাকবে, এটা নিশ্চিত হওয়াতে আমি ভীষণভাবে উদ্দীপ্ত।
ছোট্ট দ্বীপরাষ্ট্র পুয়েতো রিকোর মানুষকে আনন্দের উপলক্ষ এনে দেওয়াটাকে খুব বড় করে দেখছেন কামাচা-কুইন। বলেছেন, আমি নিশ্চিত যে পুরো পুয়ের্তো রিকো এখন আনন্দে ভাসছে। আমার দেশের মানুষের জন্য আমি এমন কিছুই করতে চেয়েছিলাম। আবেগঘন ভাষায় হার্ডলসের নতুন রানী বলেন, আমি ভীষণ রকমরে খুশি। আমি মনে করি, সবকিছুই করা সম্ভব। তবে এর জন্য প্রয়োজন কঠোর পরিশ্রম।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button