খেলা

সিরিজ জিততে চান ওয়েড

অনুশীলন সেশনটা ঘণ্টা দুয়েকেই সীমাবদ্ধ থাকল। তবে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সোমবার যতটা সময় কাটিয়েছে অস্ট্রেলিয়া দল, ব্যাটিং-বোলিং আর ফিল্ডিং অনুশীলনে ততক্ষণ নিমগ্ন ছিল তারা। বরাবরের মতো এদিনও কোনো কিছুতে ফাঁক রাখেনি অতিথিরা। এমনিতে টিম বাংলাদেশ হয়তো তাদের কাছে খুব বড় কোনো প্রতিপক্ষ নয়। বিশেষ করে টি-টোয়েন্টিতে। তবে খেলা যখন টাইগারদের ডেরায়, তখন সবকিছুতেই সিরিয়াস অজিরা। পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজটা যতটা সম্ভব বড় ব্যবধানে জিতেই যে ঘরে ফেরার লক্ষ্য তাদের। সিরিজপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে সেই লক্ষ্যের কথাই জানিয়েছেন দলটির অধিনায়ক ম্যাথু ওয়েড।
মাসখানেক আগে দেশ ছাড়া ওয়েডরা ঘুরে এসেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেখানে স্বাগতিকদের বিপক্ষে সীমিত ওভারের দুটো সিরিজ খেলেছে তারা। স্টিভ স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, প্যাট কামিন্সদের ছাড়া খেলতে নেমে ওয়ানডে সিরিজটা ২-১ ব্যবধানে জিতলেও পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ ৪-১ ব্যবধানে হারতে হয়েছে তাদের। স্মিথ-ওয়ার্নাররা আসেননি বাংলাদেশেও। চোটের কারণে ওয়েস্ট ইন্ডিজ থেকেই দেশে ফিরে গেছেন অজিদের নিয়মিত অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। তার অনুপস্থিতিতেই বাংলাদেশের বিপক্ষে তারুণ্যনির্ভর অস্ট্রেলিয়াকে নেতৃত্ব দিতে যাচ্ছেন ওয়েড।
সিরিজটা তাই এই কিপার-ব্যাটারের জন্য বাড়তি চ্যালেঞ্জ। তাতে অবশ্য মনোবল টলছে না। ওয়েড আত্মবিশ^াসী, যারা আছে, তাদের নিয়েই দারুণ কিছু করে দেখাতে পারবেন। ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জের ব্যর্থতা টাইগারদের ডেরায় ভুলিয়ে দিতে চান তিনি, ‘আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রতিটি দিনেই আপনাকে শিখতে হবে। সম্ভবত ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে স্বাভাবিক খেলা খেলতে আমাদের কয়েকটা ম্যাচ লেগেছে। সেখানকার টি-টোয়েন্টি মডেলটা একটু ভিন্ন ছিল। এখানে আমাদের লক্ষ্য থাকবে ভালো করা। আশা করি, ফল আমাদের পক্ষে আসবে।’
সিরিজ জেতার তাড়না যেমন আছে, তেমনি অক্টোবর-নভেম্বরে হতে যাওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপেও নজর রাখছে অজিরা। ওয়েড তেমনটাই বললেন, ‘অবশ্যই আমরা এই সিরিজ জিততে চাই। সবসময়ই প্রতিটি ম্যাচ জিততে চাই আমরা। তবে এটা একটা সুযোগ সবাইকে দেখারÑ বিভিন্ন ভূমিকায় তারা কেমন করছে, যাতে বিশ^কাপের দল নির্বাচনের সময় সুবিধা হয়। তাই সুযোগটি নেওয়ার জন্য সবাই রোমাঞ্চিত। নানান জায়গায় নিজেদের সামর্থ্য প্রমাণে মুখিয়ে থাকবে অনেকেই।’ এ প্রসঙ্গে ওয়েড আরও বলেছেন, ‘হ্যাঁ, অবশ্যই ওয়েস্ট ইন্ডিজেও আমরা এটা (বিশ^কাপের প্রস্তুতি নেওয়া) করেছি। প্রত্যাশিত ফল আমরা পাইনি। তবে কিছু কিছু বিষয় আমরা পেরেছি, যা দেখতে চেয়েছিলাম। মিচেল মার্শ, অ্যাশটন টার্নারদের কাছ থেকে যা চেয়েছি, তা পেয়েছি। আরও কয়েকজন আছে, তারা দেখিয়েছে যে এই পর্যায়ে তাদের সামর্থ্য আছে।’
মিরপুরে আজ থেকে শুরু হতে যাওয়া সিরিজেও যে তাদের নজর অন্যদিকে সরে যাচ্ছে না, সেটাও জানিয়ে দিয়েছেন ওয়েড, ‘আমাদের ফোকাসটা খুব বেশি নড়ছে না। (বিশ্বকাপের আগে) আমাদের সামনে বেশি খেলা নেই। কয়েকটি ম্যাচ খেলব। ওয়েস্ট ইন্ডিজে আমাদের সময়টা ভালো কাটেনি। এই টি-টোয়েন্টি সিরিজে মানসিকতা কিছুটা ভিন্ন থাকবে। এখন আমরা বেশ ভালো অনুভব করছি। আটটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে এসেছি। এখানে উইকেট কিছুটা মন্থর থাকবে। স্পিন ধরবে। এখানে প্রত্যাশিত ফল পেতে ছেলেরা গতকাল (রোববার) এই দিকটাতে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছে।’
মিরপুরের উইকেট স্পিনবান্ধব হবে, আসার পর থেকে সেটা ধরেই বসে আছে অজিরা। তাদের প্রস্তুতিতেও তাই এই দিকটাতে বাড়তি নজর থাকছে। তাই গতির কথা ভুলে মিচেল স্টার্ক-জস হ্যাজলউডরাও স্লোয়ার নিয়ে কাজ করলেন সোমবারের অনুশীলনে। সব দিক থেকেই প্রস্তুতি সেরে নিয়েছে অজিরা। এবার লড়াইয়ের ময়দানে নিজেদের মেলে ধরার অপেক্ষায় তারা।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button