বিনোদন

‘এন্ড্রু কিশোর নিতে না চাইলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, চেকটি বড় বোন হিসেবে দিচ্ছেন’

গত ৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে ডেকে ১০ লাখ টাকার চেক তুলে দেন কিংবদন্তি প্লেব্যাক শিল্পী এন্ড্রু কিশোরের হাতে। মুহূর্তেই এমন খবর ও ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমেগুলোতে সংক্রমিত হয়।
প্রশংসা নয়, ওঠে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়ার ঝড়। প্রশ্ন বিদ্ধ করা হয় দরাজ কণ্ঠের এই গায়ককে। অনেকেরই প্রশ্ন ছিল, এন্ড্রু কিশোরের মতো সামর্থ্যবান শিল্পীর কেন অনুদান গ্রহণ করতে হবে? অনেকে জানতে চান, তিনি আসলেই কি অসুস্থ?

দ্বিতীয় প্রশ্নের জবাব পাওয়া গেছে অনেক আগেই। এবার প্রথম প্রশ্নটিই যেন খোলাসা করে দিলে সংগীতশিল্পী সামিনা চৌধুরী।
তিনি জানালেন, মূলত এ টাকা প্রধানমন্ত্রী এন্ড্রু কিশোরকে স্নেহভরে দিয়েছেন। প্রথমে টাকা নিতে না চাইলেও প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধে এটি তিনি গ্রহণ করেন। ফেসবুকের এক স্ট্যাটাসে সামিনা চৌধুরী এমন কথাই তুলে ধরেছেন।
বলেন, ‘বরেণ্য কণ্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোর দা’কে ডাকা হয়েছিল একটা প্রোগ্রামের ব্যাপারে আলাপ করার জন্য! এন্ড্রু দা মাস খানেক ধরে হরমোনের সমস্যায় জর্জরিত! উনার ছোটবেলা থেকেই এই সমস্যা ছিল! তবে এখন উনার ওজন বেশ কমে গিয়েছে! ত্বকের রংও পরিবর্তন হয়ে গেছে। এটা জানার পর প্রধানমন্ত্রী নিজে থেকে দাদাকে দশ লাখ টাকার একটি চেক দিয়েছেন। এন্ড্রু ‘দা নিতে না চাইলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাকে বলেন যে, চেকটি তিনি বড় বোন হিসেবে দিতে চাইছেন!
একটা রাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রী যদি নিজে থেকে কাউকে কিছু দিতে চান সেটা উপেক্ষা করা তাকে অসম্মান করাও বৈকি। আমি যতটুক জেনেছি, টাকার ব্যাপারটা এটুকুই।’চেক গ্রহণ করছেন এন্ড্রু কিশোর

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা অনেক কষ্টে একজন করে ক্ষণজন্মা মৌলিক কণ্ঠশিল্পী পাই। তাকে ভালবাসা দিয়ে মনে সাহস দিয়ে বাঁচতে এবং গান গেয়ে যেতে সাহায্য করা যে আমাদেরই দায়িত্ব! দশ লাখ টাকার জন্য যে এন্ড্রু দার মতো শিল্পী কারো কাছেই টাকা চাইবেন না এ ব্যাপারে অন্তত আমি নিশ্চিত। আমি তার স্নেহধন্য ছোট বোন, সবসময় তাদের স্নেহের ছায়ায় আছি, থাকতে চাই আজীবন।’
এদিকে গত সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে নয়টার একটি ফ্লাইটে উন্নততর চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে ঢাকা ছেড়েছেন এন্ড্রু কিশোর।
খবরটি নিশ্চিত করেছিলেন এন্ড্রু কিশোরের সফরসঙ্গী ও চিকিৎসা সমন্বয়ক কণ্ঠশিল্পী জাহাঙ্গীর। তিনি জানান, দেশের চিকিৎসকদের পরামর্শ নিয়ে দুই সপ্তাহ আগেই সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ একজন চিকিৎসকের অ্যাপয়েন্টমেন্ট নেওয়া হয়েছে। তাদের সঙ্গে এন্ড্রু কিশোরের স্ত্রীও আছেন।
জানা গেছে, বেশ কিছুদিন ধরে এই নন্দিত শিল্পীর শরীরের ওজন ক্রমাগত কমে যাচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, কিডনির ওপরের একটি গ্রন্থি ফুলে গেছে। ফলে ওজন কমে যাওয়া-সহ তার শরীরে হরমোনজাতীয় বিভিন্ন সমস্যা তৈরি হয়েছে।
নতুন কোনও জটিলতা না তৈরি হলে কিংবা চিকিৎসক হাসপাতালে ভর্তি হতে না বললে ১৪ সেপ্টেম্বর দেশে ফেরার কথা রয়েছে এন্ড্রু কিশোরের।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button