আন্তর্জাতিক

জেরুজালেম থেকে উৎখাত ফিলিস্তিনি পরিবারের আবেদন মূলতবি

জেরুজালেমে ইসরায়েল দখলদার বাহিনী কর্তৃক উৎখাত হওয়া ফিলিস্তিন পরিবার ইসরায়েলি সুপ্রিম কোর্টে ন্যায়বিচার চেয়ে আবেদন করেছেন। তবে সেই আবেদন মূলতক ঘোষণা করেছেন আদালত। পরিবারের সদস্যরা জানান, আদালত থেকে তাদের ‘নিরাপত্তা তাবু’তে থাকার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। তবে সেক্ষেত্রে নিজেদের জমির ইসরায়েলি মালিকানা মেনে নিতে হতো।
আদালতের এমন প্রস্তাব নাকচ করায় সিদ্ধান্ত মূলতবি করা হয়েছে। সোমবার সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছিলেন ওই চার পরিবার। তাদের সদস্য সংখ্যা প্রায় ৭০ জন। এর আগে ইসরায়েলের নিম্ন আদালত তাদের উৎখাতের অনুমতি দিয়েছিল।
তবে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করা হলে ফিলিস্তিনিদের ‘সুরক্ষিত তাবুবাসী’ হওয়ার প্রস্তাব দেয়। এজন্য তারা ইসরায়েলকে নিজেদের বাড়ির মালিক হিসেবে ভাড়া দেবেন। এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন ফিলিস্তিনিরা।
বিচারপতি আইজ্যাক অমিত আরও নথিপত্র যোগাড়ের আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘আমরা পরে আমাদের সিদ্ধান্ত জানাবো।’ তবে কোনও নির্দিষ্ট তারিখ জানাননি।
ফিলিস্তিনি ওিই পরিবারের সদস্য মুহাম্মদ আল কুর্দ বলেন, ‘তারা এই চুক্তি মানতে আমাদের ওপর অনেক চাপ দিচ্ছিল। কিন্তু আমরা তা প্রত্যাখ্যান করেছি।
তাদের আইনজীবী সামি এরশাদ বলেন, আমরা এমন কোনও প্রস্তাব পায়নি যা সুবিচার প্রতিষ্ঠিত করে। আমরা কোনও ছাড় দেব না।’
ইসরায়েল অধিকৃত পূর্ব জেরুসালেমের একটি অঞ্চল হচ্ছে এই শেখ জারাহ। জেরুসালেম শহরের প্রাচীন অংশ এবং পবিত্র স্থানগুলোর কাছাকাছিই এই এলাকাটির অবস্থান। এই এলাকাটির জমির মালিক কে – এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিবাদ চলছে।
এখানে বসবাসরত ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদ করার জন্য ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারী গোষ্ঠীগুলো দীর্ঘদিন ধরে নানাভাবে চেষ্টা করে চলেছে। এই ফিলিস্তিনিরা এখানে বসবাস করছে দশকের পর দশক ধরে, যারা একসময় শরণার্থী হিসেবে এই এলাকায় বাস করতে শুরু করেছিল।
ইসরায়েল-ফিলিস্তিনি সংঘাতের একেবারে কেন্দ্রবিন্দুতে পূর্ব জেরুসালেম ও তার এই ছোট্ট পাড়াটির অবস্থান ।
ইসরায়েল মনে করে পুরো জেরুসালেম শহরটিই তাদের রাজধানী। কিন্তু আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অধিকাংশই এ ধারণাকে স্বীকৃতি দেয় না।
অন্যদিকে ফিলিস্তিনিরা চান, ভবিষ্যতের ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রের রাজধানী হবে এই পূর্ব জেরুসালেম।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button