খেলালিড নিউজ

সাকিবের যে প্রস্তাবে খুশি আইসিসি

কণিকা অনলাইন :

ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পাওয়ার পর তাতে সাড়া না দিলেও বিষয়টি আইসিসি কিংবা বিসিবির কাছে গোপন করায় সাকিব আল হাসানকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছে বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি। তবে নিজের ভুল স্বীকার করায় তার দুই বছরের শাস্তির এক বছর স্থগিত করা হয়েছে। সাকিবের ভালো আচরণ এবং একটি প্রস্তাবে খুশি হয়ে আইসিসি তার সাজা কমিয়েছে।

এ ব্যাপারে আইসিসির মহাব্যবস্থাপক অ্যালেক্স মার্শাল বলেন, ‘সাকিব আল হাসান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অত্যন্ত অভিজ্ঞ একজন খেলোয়াড়। তিনি অনেক শিক্ষা প্রোগ্রামে অংশ নিয়েছেন এবং এই বিষয়ে কোড অব কন্ডাক্টে যে বিধিনিষেধ আছে সে সম্পর্কেও তিনি ভালোভাবে অবগত। (বুকির) প্রত্যেকটি প্রচেষ্টার ব্যাপারে তার রিপোর্ট করা উচিৎ ছিলো।’

‘তবে সাকিব তার ভুল মেনে নিয়েছেন এবং তদন্তে পুরোপুরি সহযোগিতা করেছেন। ইনটিগ্রিটি ইউনিটের শিক্ষা প্রোগ্রামে সহযোগিতা করার প্রস্তাবও দিয়েছেন, ভবিষ্যতে তরুণ ক্রিকেটারদের তার ভুল থেকে শেখানোর জন্য। আমি তার এই প্রস্তাবে খুশি।’

সাকিবের এমন সহযোগিতা এবং স্বচ্ছ অবস্থানের কারণে তার বিরুদ্ধে দুই বছরের নিষেধাজ্ঞার এক বছর স্থগিত করেছে আইসিসি।

সাকিব বলেন, ‘আমার ভালোবাসার খেলাটি থেকে নিষিদ্ধ হওয়ায় আমি অত্যন্ত বিষণ্ণ। তবে (আইসিসিকে) রিপোর্ট না দেয়ায় আমার বিরুদ্ধ যে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে সেটা আমি মেনে নিচ্ছি। দুর্নীতির বিরুদ্ধে ভূমিকা পালনের জন্য আইসিসির এসিইউ খেলোয়াড়দের ওপর আস্থা রাখে। কিন্তু আমি এক্ষেত্রে আমার দায়িত্ব পালন করতে পারিনি।’

তিনি বলেন, ‘বিশ্বব্যাপী ক্রিকেটার এবং ফ্যানদের মতো আমিও চাই দুর্নীতিমুক্ত ক্রিকেট। আমি আইসিসির এসিইউ টিমের শিক্ষা প্রোগ্রামে অংশ নিয়ে তাদের সহযোগিতা করতে চাই এবং আমি যে ভুলটি করেছি তা যেনো আর কোনো তরুণ ক্রিকেটার না করেন সেটি নিশ্চিত করতে সহযোগিতা করতে চাই।’

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছে আইসিসি। তবে, দোষ স্বীকার করার কারণে, তার ১ বছরের শাস্তি স্থগিত করেছে আইসিসি। ফলে তিনি এক বছর পরই আবার খেলতে পারবেন। তবে এর মধ্যে নতুন করে কোনো আইন ভাঙতে পারবেন না। তাহলেই শুধু তার একবছরের সাজা বাতিল হবে।

আইসিসি, জানিয়েছে ২৯ অক্টোবর ২০২০ থেকেই সাকিব আন্তার্জাতিক ক্রিকেটে পুনরায় খেলা শুরু করতে পারবেন। আইসিসি তার বিরুদ্ধে যে তিনটি অভিযোগ এনেছিলো সেগুলো স্বীকার করে নেওয়ায় সাকিবের বিরুদ্ধে জারি করা দুই বছরের নিষেধাজ্ঞার একবছর স্থগিত করা হয়েছে। তবে তিনি যদি এই এক বছরে আর কোনো আইন না ভাঙেন তাহলেই শুধু তিনি এক বছর পরই খেলতে পারবেন।

২৯ অক্টোবর ২০১৯ (মঙ্গলবার) আইসিসির পক্ষ থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আরো দেখুন

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button